1. admin@rangpurjournal.com : admin :
ওসি প্রদীপের ২০ বছরের কারাদণ্ড ও তার স্ত্রীকে ২১ বছরের কারাদণ্ড - রংপুর জার্নাল
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
হাতীবান্ধায় রাস্তা কেটে চলাচল বন্ধ করার প্রতিবাদে মানববন্ধন ফুটবল যুদ্ধে ইরানকে হারিয়ে শেষ ষোলোতে যুক্তরাষ্ট্র ইউএসএ কুষ্টিয়া জেলা সমিতি অভিষেক অনুষ্ঠিত সদরপুরে পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, আহত-৪ পুলিশ হামিদ মালস্ এর প্রিন্সেস-রংপুর জার্নাল লালমনিরহাটে ভুয়া বিল ভাউচার দিয়েই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সরকারি টাকা আত্বসাৎ পাটগ্রামে কর্মসৃজন প্রকল্প কাজের উদ্বোধন সৌদির প্রত্যেক খেলোয়াড়কে সাড়ে ১৬ কোটির রোলস রয়েস দিচ্ছেন যুবরাজ ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আরো একটি ধর্ষণের অভিযোগ আদিতমারীতে আ.লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশসহ ৩০জন আহত

ওসি প্রদীপের ২০ বছরের কারাদণ্ড ও তার স্ত্রীকে ২১ বছরের কারাদণ্ড

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৭ জুলাই, ২০২২
  • ১৩৪ বার পঠিত

ওসি প্রদীপের ২০ বছরের কারাদণ্ড ও তার স্ত্রীকে ২১ বছরের কারাদণ্ড

 

শফিউজ্জামান আতা,

স্টাফ রিপোর্টার।

টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকি কারনের দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এই রায়ে ওসি প্রদীপের ২০ বছরের কারাদণ্ড ও তার স্ত্রীকে ২১ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এর আগে গত ১৭ জুলাই প্রদীপ-চুমকি দম্পতির বিরুদ্ধে দায়ের করা দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণার জন্য আজকের ধার্য করেছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় বিশেষ জজ মুন্সী আবদুল মজিদের আদালত। এর আগে প্রদীপ দম্পতির পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হলে রায় ঘোষণার দিন নির্ধারণ করেন আদালত। ওইদিন আদালতে প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকিও উপস্থিত ছিলেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ ডিসেম্বর প্রদীপ ও চুমকির বিরুদ্ধে দুদকের মামলায় অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। প্রদীপ কারাগারে থাকলেও তার স্ত্রী চুমকি তখন পলাতক ছিলেন। গত ২৩ মে চুমকি আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

এর আগে ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট তাদের বিরুদ্ধে চার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। দুদকের দেওয়া অভিযোগপত্রে বলা হয়, চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালি থানাধীন পাথরঘাটায় ৬ তলা বাড়ি, ষোলশহরে বাড়ি, ৪৫ ভরি সোনা, একটি গাড়ি, একটি মাইক্রোবাস, ব্যাংক হিসাব এবং কক্সবাজারের একটি ফ্ল্যাট রয়েছে চুমকির নামে।

তাদের ৪ কোটি ৮০ লাখ ৬৪ হাজার ৬৫১ টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিপরীতে বৈধ ও গ্রহণযোগ্য আয় পাওয়া যায় দুই কোটি ৪৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৩৪ টাকা। দুই কোটি ৩৫ লাখ ৯৮ হাজার ৪১৭ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের সত্যতা পেয়েছে দুদক। এ ছাড়া চুমকি নিজেকে মৎস্য ব্যবসায়ী দাবি করলেও এ ব্যবসার কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায় নাই।

এদিকে ২০২১ সালের ২৬ জুলাই প্রদীপ ও তার স্ত্রী চুমকির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক। মামলায় ২৯ সাক্ষীর মধ্যে ২৪ জন সাক্ষ্য দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Rangpur Journal
Theme Customized By Theme Park BD